করোনাভাইরাস
Home » করোনা শনাক্তে চট্টগ্রামে বাঁশখালী উপজেলা এগিয়ে
এক নজরে করোনাভাইরাস বৃহত্তর চট্টগ্রাম ব্রেকিং নিউজ সব খবর স্বাস্থ্য

করোনা শনাক্তে চট্টগ্রামে বাঁশখালী উপজেলা এগিয়ে

Spread the love

চট্টগ্রাম জেলায় করোনা শনাক্তের ৫১ এর মধ্যে বাঁশখালী উপজেলারই ২৫ জন। পুরো জেলায় নতুন ৫১ জন নতুন শনাক্ত হলেও এর ২৫ জনই বাঁশখালী উপজেলার বাসিন্দা। সংক্রমণের হার ৮ দশমিক ১৭ শতাংশ।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সর্বশেষ রিপোর্টে বলা হয়, গতকাল শনিবার ২৪ ঘণ্টায় ৬২৪ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৫১ জনের শরীরে নতুন করে সংক্রমণ চিহ্নিত হয়েছে। জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা এখন ১৭ হাজার ৮৫০ জন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে শহরের বাসিন্দা ২৩ জন এবং উপজেলার ২৮ জন। এ ২৮ জনের ২৫ জনই আবার বাঁশখালী উপজেলার। এ সময়ে মৃত্যু হয়েছে একজনের। এ পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা ২৭৯ জন। একই দিনে সুস্থ হয়েছেন ৮৮ জন। ফলে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে ১৩ হাজার ৯১৭ জনে উন্নীত হলো।

চট্টগ্রামের কোনো উপজেলায় একদিনে ২৫ জন শনাক্ত এ প্রথম, যা আবার জেলার মোট সংক্রমণের অর্ধেক।

বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শফিউর রহমান মজুমদার বলেন, ‘করোনাকাল শুরুর পর এ ধরণের ঘটনা আর না ঘটলেও বিষয়টি অস্বাভাবিক নয়। তবে, এরা সবাই উপজেলার নির্দিষ্ট কোনো এলাকার নন অথবা একই পরিবারভূক্ত বা আত্মীয়-স্বজন নন। বিভিন্নস্থানে এদের বাড়ি। আবার কেউ কেউ শহরে থাকেন। নমুনা জমার সময় গ্রামের ঠিকানা ব্যবহার করেছেন।’

ল্যাবভিত্তিক রিপোর্টে দেখা যায়, শনিবার(১২সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রামের ৩টি ও কক্সবাজারের একটি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়। এর মধ্যে ফৌজদারহাটস্থ বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ২৬১ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৭ জন পজিটিভ শনাক্ত হন। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ১০৩টি নমুনার মধ্যে ৮ টিতে করোনার জীবাণু মেলে। বেসরকারি পরীক্ষাগার শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ৬২ জনের নমুনায় ৩ জন করোনার ভাইরাসবাহক চিহ্নিত হন। তবে এদিন চট্টগ্রামের ১৯৯টি নমুনা পরীক্ষার জন্য কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে পাঠানো হয়। এদের মধ্যে ২৬ জন করোনাক্রান্ত বলে জানানো হয়।

শনিবার(১২সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি), চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এন্ড এনিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ও বেসরকারি ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে কোনো নমুনা পরীক্ষা হয়নি।

কয়েকদিনের রিপোর্টে বিশ্লেষণে দেখা যায়, সংখ্যায় না বাড়লেও শনিবার(১২ সেপ্টেম্বর) সংক্রমণ হার যথেষ্ট বেড়েছে। গত শুক্রবার ৪৯ জনের সংক্রমিত হন, হার ৪ দশমিক ৯৪ শতাংশ। বুধ ও বৃহস্পতিবার পরপর দু’দিন ৫৩ জনের সংক্রমণ ধরা পড়ে। হার যথাক্রমে সর্বনিম্ন ৩ দশমিক ৯০ শতাংশ ও ৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ। গত মঙ্গলবার চট্টগ্রামে ৫৪ জন পজিটিভ শনাক্ত হন। সংক্রমণ হার ৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ। এর আগে সোমবার ৬ দশমিক ৭২ শতাংশ, রোববার ৭ দশমিক শূন্য ৭, শনিবার ৬ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ ও আগের সপ্তাহের শুক্রবার ৫ দশমিক ৮৮ শতাংশ সংক্রমণ হার শনাক্ত হয়।