লর্ড গোল্ডস্মিথ-সায়মা ওয়াজেদ
Home » যুক্তরাজ্যের মন্ত্রীর বাংলাদেশের প্রশংসা
এক নজরে জাতীয়

যুক্তরাজ্যের মন্ত্রীর বাংলাদেশের প্রশংসা

ঢাকা, ২৯ আগস্ট  : বাংলাদেশের জলবায়ুু অভিযোজন প্রচেষ্টাকে বিশ্বের জন্য একটি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হিসেবে উল্লেখ করে যুক্তরাজ্যের আন্তর্জাতিক পরিবেশমন্ত্রী লর্ড গোল্ডস্মিথ জলবায়ুু পরিবর্তন মোকাবেলায় বাংলাদেশের সাথে কাজ করার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। বাসস

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের মতো উন্নয়ুনশীল দেশ জলবায়ুু পরিবর্তনের দ্বারা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। জলবায়ুর প্রভাবের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে এবং সহিষ্ণুতা তৈরি করতে এখানে (বাংলাদেশ) যে কাজ হচ্ছে তা বিশ্বের জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত।’

ব্রিটিশ হাইকমিশনের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে শনিবার(২৯ আগস্ট) বলা হয়েছে, জলবায়ুু পরিবর্তন মোকাবেলায় অভিযোজন ও সহিষ্ণুতা গড়ে তুলতে বাংলাদেশকে যুক্তরাজ্যের সাহায্য করার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করার জন্য গত ২৫ আগস্ট তিনি বাংলাদেশে ভার্চুয়াল সফর করেন।

যুক্তরাজ্য আগামী বছর তার অংশীদার ইতালির সাথে গ্লাসগোতে জাতিসংঘের জলবায়ুু পরিবর্তন সম্মেলন কপ-২৬ আয়োজন করবে। এদিকে, বাংলাদেশ ২০২০-২০২২ মেয়াদে ক্লাইমেট ভালনেরেবল ফোরাম (সিভিএফ) এবং অর্থমন্ত্রীদের ভালনেরেবল টোয়েন্টি (ভি ২০) গ্রুপের সভাপতিত্ব করছে।
যুক্তরাজ্যের মন্ত্রী বলেন, কপ-২৬ এর সভাপতি হিসাবে আমরা সংশ্লিষ্ট দেশগুলোকে জলবায়ুু পরিবর্তন মোকাবেলার পরিকল্পনার কেন্দ্রবিন্দুতে প্রকৃতি-ভিত্তিক সমাধান উপস্থাপনের জন্য উচ্চাকাক্সক্ষী দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে এগিয়ে আসতে উৎসাহিত করছি।

তিনি উল্লেখ করেন, বৈশ্বিক উষ্ণায়নের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় বাংলাদেশের অভিযোজন প্রচেষ্টায় সহায়তা করতে পেরে যুক্তরাজ্য গর্বিত।

লর্ড গোল্ডস্মিথ ক্লাইমেট ভালনেরেবল ফোরামের (সিভিএফ) নবনিযুক্ত থিম্যাটিক এম্বাসেডর সায়মা ওয়াজেদ হোসেনের সাথে ভার্চুয়াল সাক্ষাৎ করেন।

বৈঠকে তারা কপ-২৬ অনুষ্ঠান চলাকালে অভিযোজন ও সহিষ্ণুতার বিষয়ে বৈশ্বিক উচ্চাকাক্সক্ষা বাড়াতে ফোরামের ভূমিকা পালনের সুযোগ কাজে লাগানোর বিষয়ে আলোচনা করেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা সায়মা নিউরো ডেভেলপমেন্ট ডিজঅর্ডার এবং মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক বিশেষজ্ঞ এবং একজন দক্ষ বক্তা ও লেখক।

সূত্র: বাসস