সিনেমা
Home » পর্নো সিনেমায় ‘থ্রি এক্স’ লেখা হয় কেন?
এক নজরে বিনোদন

পর্নো সিনেমায় ‘থ্রি এক্স’ লেখা হয় কেন?

Spread the love

বিনোদন ডেস্ক: বৃক্ষ তোমার নাম কি? ফলে পরিচয়! এমন প্রবাদ আমাদের সবারই জানা। আবার আকাশের দিকে তাকিয়ে আমরা অকপটে বলতে পারি আকাশ পরিস্কার না মেঘের আনাগোনা আছে। আবার এসব বিষয়াদী ভালোভাবে রপ্ত করার কারণে অনেকে ঘড়ি হাতে না দিয়েও সময় বলে দিতে পারেন।

তবে এক্স এক্স এক্স বা থ্রি এক্স। অঙ্কের খাতায় এক্স দিয়ে অজ্ঞাত রাশি বোঝানো হয়। চিঠির এই শেষে এই চিহ্ন লেখা থাকার অর্থ প্রাপকের প্রতি চুম্বন পাঠানো। কিন্তু সিনেমায় তিনটি এক্স মানে চুমুতেই সীমাবদ্ধ নয়। সেখানে এক্স বিশেষ ধরনের ছবির চিহ্ন বহন করে। আসলে যে ছবিতে যত এক্স সেই ছবি ততো বেশি নীল দোষে দুষ্ট। এক্স দিয়ে বোঝানো হয় মার্কামারা সেই খেলামেলা ছবি।

আসলে নীল বা পর্নো ছবিতে এক্স লেখা হয় ‘এক্সপ্লিসিট’ শব্দের সংক্ষেপ রূপ হিসেবে। এর আড়ালে রয়েছে ‘এমপা’ বা মোশন পিকচার অ্যাসোসিয়েশন আমেরিকার করা ছবির শ্রেণিবিভাজন।

১৯৬৮ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এই সংস্থার ছবির চার ধরনের বিভাগ চালু করে। এগুলো হলো ‘জি’ (জেনারেল), ‘এম’ (ম্যাচিউর), ‘আর’ (রেস্ট্রিক্টেড) এবং ‘এক্স’ (এক্সপ্লিসিট)। পরবর্তীতে এই বিভাজনের বদলালেও শুরুটা ছিল এমনই।

তবে মজার কথা হলো- শুরুতে এখানে এক্সপ্লিসিট শুধু যৌনতায় আবদ্ধ ছিলো না। যে কোনো ধরনের ভায়োলেন্সের ক্ষেত্রেই অতিরিক্ত বাড়াবাড়িকে বুঝাতে এক্স বুঝানো হতো। মানে প্রতিটা বিভাগের ট্রেডমার্ক ছিলো। কোনো প্রযোজক বা পরিচালক মার্কা তার ছবিতে ব্যবহার করতে পারতেন না। মোশন পিকচার অ্যাসোসিয়েশন ছবিটি ভালো করে দেখে কোন রেটিং তার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে তা স্থির করে। সেই মতো চিহ্ন নির্ধারণ করতো। এক্ষেত্রে এক্স সিনেমায় এমপার অনুমোদন দরকার হতো না।

এই পদ্ধতি অনুসরণ করতে গিয়ে প্রযোজক ও পরিচালক নিজের ইচ্ছামতো ছবির আকর্ষণ বাড়াতে গিয়ে অনেকে নিজে থেকে ছবিতে ‘এক্স’ চিহ্ন জুড়ে দিতে লাগলেন। দর্শকদের ও দুষ্টু সিনেমা চিনতে সুবিধা হলো। পরিচালক দর্শকের দাবির মুখে খোলোমেলো দৃশ্যের লোভে পড়ে গেল।

বিএনএ/এমএইচ