সাবরিনা-আরিফ
Home » সাবরিনার মামলায় সাক্ষী হাজির হয়নি: দুই ওসিকে শোকজ
আইন-আদালত টপ ফোর ব্রেকিং নিউজ রাজধানী সব খবর

সাবরিনার মামলায় সাক্ষী হাজির হয়নি: দুই ওসিকে শোকজ

আদালত প্রতিবেদক: করোনার ভুয়া রিপোর্ট দেয়ার অভিযোগে প্রতারণার মামলায় জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ও জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের চিকিৎসক(সাময়িক বরখাস্ত) ডা. সাবরিনা চৌধুরী ও সিইও আরিফুল হক চৌধুরী(সাবরিনা স্বামী)সহ আটজনের বিরুদ্ধে করা মামলায় সাক্ষী হাজির করতে না পারায় গুলশান ও খিলগাঁও থানার ওসিকে শোকজ করেছেন আদালত।

বুধবার (২১ অক্টোবর) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সারাফুজ্জামান আনছারীর আদালত এ আদেশ দেন। এদিন মামলাটি সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ধার্য ছিলো। কিন্তু কোনো সাক্ষী আদালতে হাজির হননি। এজন্য রাষ্ট্রপক্ষ থেকে সাক্ষ্যগ্রহণ পেছানোর জন্য সময়ের আবেদন করা হয়। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত সময় আবেদন মঞ্জুর করে পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ ৩ নভেম্বর ধার্য করেন।

একইসঙ্গে আদালত গুলশান ও খিলগাঁও থানার ওসির কাছে কেন সাক্ষী আদালতে উপস্থিত হয়নি সে ব্যাখ্যা (শোকজ) চেয়েছেন। এ পর্যন্ত আদালতে ৪২ জন সাক্ষীর মধ্যে ৬ জন সাক্ষী সাক্ষ্য দিয়েছেন। গত ২০ আগস্ট সাবরিনাসহ ৮ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন আদালত।

মামলার আসামিরা হলেন, ডা.সাবরিনা,ডা. সাবরিনার স্বামী জেকেজির সিইও আরিফুল হক চৌধুরী, তার সহযোগী সাঈদ চৌধুরী, জালিয়াত চক্রের হোতা হুমায়ুন কবির ও তার স্ত্রী তানজীনা পাটোয়ারী, নির্বাহী অফিসার শফিকুল ইসলাম, প্রতিষ্ঠানটির ট্রেড লাইন্সেসের স্বত্বাধিকারী জেবুন্নেছা রিমা, বিপ্লব দাস ও মামুনুর রশীদ।আসামিরা সবাই কারাগারে রয়েছেন।

উল্লেখ্য, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় করোনা শনাক্তের জন‌্য নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষা না করেই জেকেজি হেলথকেয়ার ২৭ হাজার মানুষকে রিপোর্ট দেয়। এর বেশিরভাগই ভুয়া বলে ধরা পড়ে। এ অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটিতে গত ২৩ জুন অভিযান চালিয়ে সিলগালা করে দেওয়া হয়। পরে তাদের বিরুদ্ধে তেজগাঁও থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

বিএনএ নিউজ/সাহিদুল